ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি? – WordPress Plugin কিভাবে কাজ করে?

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি তা নিয়ে অনেক নতুন ব্লগারদের জানার প্রচুর আগ্রহ রয়েছে। অনেকেই ওয়েবসাইট শুরু করার আগে জেনে নিতে চায় ওয়ার্ডপ্রেস এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্লাগিন সম্পর্কে। আবার অনেক নতুন ব্লগারদের মনে প্রশ্ন থাকে wordpress এর সবচেয়ে ভালো প্লাগিন কোনগুলো।

তাই আজকের আর্টিকালে আমি প্রথমে লিখব ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি এই সম্পর্কে। এবং তারপর ওয়ার্ডপ্রেস এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্লাগিন সম্পর্কে একটা রিভিউ দিব।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি?

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন হলো এক ধরনের টুলস যা ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে ব্যবহার করা হয়। ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ব্যবহারের মাধ্যমে ইউজার এর কাজের চাহিদা পূরণ করা হয়ে থাকে।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি
ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি? - WordPress Plugin কিভাবে কাজ করে? 3

এটি ইউজার এবং ডেভেলোপার উভয়ের কাজকে সহজ করে দেয়। এটি মূলত কিছু নির্দিষ্ট ফাংশনাল কমান্ড ব্যবহার করার মাধ্যমে ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে কাজ করে।

আপনি আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে যেমনটা করতে চাইবেন ঠিক সেই ধরনের অসংখ্য প্লাগিন ডিরেক্টরিতে খুঁজে পাবেন। এবং কঠিন কঠিন কাজ এই ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ব্যবহার করে খুব সহজেই অল্প সময়ে করে নিতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস এর সফলতার ও জনপ্রিয়তার পেছনে সবচেয়ে বেশি অবদান প্লাগিন এর। প্লাগিন দিয়ে খুব সহজেই ওয়ার্ডপ্রেস সাইটকে সয়ংক্রীয় নিয়ন্ত্রন করা যায় বলে ওয়ার্ডপ্রেস সারা বিশ্বে এতো জনপ্রিয়।

কিভাবে প্লাগিন ইন্সটল করতে হয়?

আপনি ২টি ভিন্ন নিয়মে ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে প্লাগিন ইন্সটল করতে পারেন। তা আর হলো-

  • সরাসরি ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড থেকে এবং
  • সার্ভারে আপলোড করার মাধ্যমে।

http://wordpress.org/extend/plugins এখান থেকে ওয়ার্ডপ্রেসের যাবতীয় সকল প্লাগিন ডাউনলোড করে হাতেকরি ইন্সটল করতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড থেকে প্লাগিন ইন্সটলঃ এটি করার জন্য প্রথমে ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ডে প্রবেশ করতে হবে। তারপর, বামপাশের মেনো থেকে প্রথমে Plugins, তারপর Add new অপশনে যেতে হবে। এখন সেখান থেকে আপনার পছন্দের প্লাগিন ইন্সটল করে নিবেন কিংবা আউলোড করে নিবেন।

সার্ভারে আপলোড করার মাধ্যমেঃ তাছাড়া, আপনার ওয়েবসাইটের সি-প্যানেল থেকে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ইন্সটল করতে পারবেন। সে জন্য সি-প্যানেল থেকে File Manager এ যেতে হবে। তারপর, Public_html ⏭ Wp-Content ⏭ Plugins এ গিয়ে প্লাগিন আপলোড করে দিতে হবে।

আরো পড়ুনঃ কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করতে হয় ?

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কিভাবে কাজ করে?

ওয়ার্ডপ্রেসকে কে এমন ভাবে তৈরি করা হয়েছে যে এখানে অন্য যেকেউ চাইলেই তার নিজের কোড যুক্ত করে ফাংশন মডিফাই করতে পারে।

আর ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন শুধুমাত্র ফাংশন মডিফাই করার মাধ্যমেই কাজ করে থাকে। এটি  API এর মাধ্যমে ওয়ার্ডপ্রেসের ফাংশন-কে মডিফাই করে।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ডেভেলপার এমনভাবে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ডেভেলপমেন্ট করে যাতে তা ব্যবহার করার মাধ্যমে কোনো কোড না লিখে নির্দিষ্ট ফাংশন মডিফাই করা যায়।

ডেভেলপারদেরকে ওয়ার্ডপ্রেস ডাটাবেজ ব্যবহারের সুযোগ দেওয়া হয়। ফলে, ওয়ার্ডপ্রেস ডাটাবেজের মধ্যে আপনার ইন্সটল করা প্রতিটি প্লাগিন অর্ন্তভুক্ত করা আছে।

একটি ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন Install করার পর আপনি চাইলে যেকোনো সময় আবার সেটিকে Uninstall করে দিতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিনের মাধ্যমে কি করা যায়?

প্লাগিন একধরনের সফটওয়ার এর মতো কাজ করে যা ব্যবহার করে ওয়েবসাইটের অনেক কার্য সম্পাদন করা যায়।

আপনার ওয়েবসাইটটি কে কেমনভাবে তৈরি করতে চান? সেখানে কি কি ফিচার রাখতে চান? সবকিছু করার জন্যই আলাদা আলাদা প্লাগিন উপস্থিত।

ওয়ার্ডপ্রেসে সবধরনের  ফিচার ডিফল্টভাবে দেওয়া থাকে না, তাই তার জন্য প্লাগিন-এর সাহায্য নিতে হয়।

যেমন, বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট তৈরিতে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন সাহায্য করে থাকে।

উদাহরণস্বরূপঃ

Woocommerce প্লাগিনের মাধ্যমে একটি ই-কমার্স সাইট; Knowledge based প্লাগিন এর মাধ্যমে Wiki ওয়েবসাইট; Buddypress প্লাগিনের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের সাইট বানানো যায়।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিনের মাধ্যমে আরো অনেক কিছু করা যায়। যেমনঃ ওয়েবসাইটে SEO করার জন্য; যোগাযোগ ফরম তৈরি; পারফরমেন্স ঠিক রাখা; স্প্যাম থেকে সুরক্ষা; গ্যালারী তৈরি করা সহ আরো অনেক কাজ প্লাগিনের মাধ্যমে সম্পাদন করা সম্ভব।

ওয়ার্ডপ্রেস এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্লাগিন

আপনার ওয়েবসাইটটি যদি ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা তৈরি হয়ে থাকে তাহলে সেখানে কিছু গুরুত্বপূর্ন প্লাগিন সেট-আপ আপনাকে করতেই হবে।

এমন কিছু গুরুত্বপূর্ন ফ্রি ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন নিয়ে নিচে আলোচনা করা হলো যেগুলো একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট এর জন্য অত্যাবর্শকীয়।

Yoast SEO Plugin

আমাদের আজকের আলোচনার শীর্ষে থাকবে Yoast SEO Plugin.

এসইও প্রতিটি ওয়েবসাইটের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। আর Yoast SEO Plugin ব্যবহার করে খুব সহজেই আপনি আপনার সাইটের এসইও করতে পারবেন।

টেকনিকাল এসইও বলুন কিংবা অন-পেইজ এসইও সবকিছুই এই একটি প্লাগিনের মাধ্যমে করা যায়। তাই, এটি একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ন একটি প্লাগিন।

আর্টিকাল লেখার সময় আপনার আর্টিকালের Keyword Density, Article length, keyword on Heading, External and Internal backlinks, ইত্যাদি তথ্য খুব সহজেই নিক্ষুতভাবে Yoast প্রদান করতে সক্ষম।

তবুও, আপনার কাছে যদি Yoast SEO প্লাগিনটি ভালো না লাগে তাহলে তার বিকল্প হিসেবে Rank math SEO প্লাগিনটিও ব্যবহার করতে পারবেন।

Wordfence Security

প্রতিটি সাইটের জন্য নিরাপত্তা বজার রাখা খুব গুরুত্বপূর্ন একটি কাজ। ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন এর মাধ্যমে ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে সে নিরাপত্তা বজায় রাখা যায়।

Wordfence Security নামক একটি প্লাগিন আছে যার মাধ্যমে আপনি হ্যাকার বা বিভিন্ন সাইবার এটাক থেকে সুরক্ষিত থাকতে পারবেন।

অনেক কষ্ট করে একটি সাইট দাঁড় করানোর পর অবশ্যই আপনি চাইবেন না আপনার সাইটটি হ্যাকারদের হাতে চলে যাক।

তাই, আমি আগে থেকেই একটি সিকোরিটি প্লাগিন ব্যবহার করার পরামর্শ দিব। আর, এর জন্য আপনি Wordfence Security ব্যবহার করতে পারেন।

কারন, একইসাথে এই প্লাগিনটি আপনাকে অনেক দিক দিয়ে নিরাপত্তা দিবে। যেমনঃ

আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ফাইল ইন্টিগ্রিটি ভেরিফাই, স্ক্যান ও রিপেয়ার করবে; সাইটে কোন ম্যালওয়্যার ও ভাইরাস আছে কিনা তা স্ক্যান করে আপনাকে জানাবে; Brute force হ্যাকিং থেকে আপনার ওয়েবসাইটকে প্রোটেক্ট করবে; আপনার সাইটকে ফায়ারওয়াল প্রটেকশন দেবে (যেমনঃ Limit log in, IP blocking, ইত্যাদি)।

LiteSpeed Cache

ওয়ার্ডপ্রেস এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্লাগিন এর মধ্যে রয়েছে Caching প্লাগিন। এটি একটি ওয়েবসাইটের স্পিড বোস্ট করে।

অর্থাৎ, একটি সাইট যাতে খুব তাড়াতাড়ি লোড সম্পূর্ন করতে পারে সে জন্য Caching প্লাগিন কাজ করে।

Caching প্লাগিন হিসেবে আপনি ব্যবহার করতে পারেন LiteSpeed Cache প্লাগিনটি। এটি অনেক ভালো একটি ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন।

এটি html, css, javascript minify করার মাধ্যমে সাইটের স্পিড বাড়ায়।

আর আপনারা হয়তো অবগত যে, সাইটের স্পিড বেশি থাকলে গুগলে র‍্যাংক পেতে সাহায্য করে এবং সাইটের ভিজিটররাও সন্তুষ্ট থাকে।

তাই, প্রতিটি ওয়েবসাইটের জন্য Caching প্লাগিন ব্যবহার করা খুব গুরুত্বপূর্ন।

UpdraftPlus

 UpdraftPlus হলো একটি backup প্লাগিন। এটি সয়ংক্রিয়ভাবে আপনার ওয়েবসাইটের backup নিয়ে থাকে।

ফলে আপনার সাইট যদি হ্যাক হয়ে যায় কিংবা নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে backup ফাইল পুনরায় restore করার মাধ্যমে তা ফেরত পেতে পারেন।

আমার মতে, ওয়েবসাইট backup রাখা খুবই জরুরী। তা না হলে, এক নিমিষেই আপনার হাজার প্ররিশ্রম সব ব্যার্থ হয়ে যেতে পারে। আপনি চিরতরে আপনার কষ্টের ওয়েবসাইট হারিয়ে ফেলতে পারেন।

আপনার সাইটে যদি UpdraftPlus ব্যবহারে এমন সেটিং করে দিতে পারবেন যাতে করে এটি ২ দিন পর পর আপনার সাইটের ব্যাক-আপ নিয়ে গুগল ড্রাইভে জমা করে রাখে।

JetPack

JetPack হলো একটি মাল্টি ফিচার ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন। প্রতিটি ইউজারের এটি ব্যবহার করা উচিত।

কারন, এই একটি প্লাগিনের অনেক কাজ করার ক্ষমতা রয়েছে।

এর উল্লেখ্যযোগ্য ফিচারের মধ্যে রয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ার বাটন যুক্ত, রিলেটেড আর্টিকাল ফিচার যুক্ত, সোশ্যাল মিডিয়া অটো পোস্ট, ইমেইল সাবস্ক্রিপশন, ডাউনটাইম মনিটর, CDN ব্যবহার, স্প্যাম কমেন্ট ব্লকিং, ইত্যাদি।

এটি খুব গুরুত্বপূর্ন একটি প্লাগিন যা প্রতিটি ব্যবহারকারীরই ব্যবহার করা উচিত।

Contact form 7

লক্ষ করলে দেখবে প্রতিটি ওয়েবসাইটেই এক ধরনের কন্টাক্ট ফরম থাকে। যার মাধ্যমে ঐ ওয়েবসাইটের মালিকের সাথে যোগাযোগ করা যায়।

তো আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের কন্টান্ট ফরম বানাতে Contact form 7 ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ব্যবহার করতে পারেন।

এর মাধ্যমে খুব সহজে কোনো কোডিং ছাড়াই কন্টান্ট ফরম তৈরি করে নেওয়া যায় একদম ফ্রি। আর অধিকাংশ ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারী তাদের সাইটে কন্টাক্ট ফরম যুক্ত করার জন্য এই ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন-টি ব্যবহার করে থাকে।

শেষ কথা

আশা করি ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি এবং ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিনের গুরুত্বপূর্ন ব্যবহার সম্পর্কে আপনি একটি স্পষ্ট ধারনা পেয়ে গেছেন।

এখানে যে কয়েকটি ওয়ার্ডপ্রেস এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্লাগিন নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে সে সবগুলো আপনার ওয়েবসাইটের জন্য জরুরী।

তাই, আপনি যদি নতুন ব্লগার হয়ে থাকে, কেবলমাত্র ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করেছেন, তাহলে প্রথমেই এই গুরুত্বপূর্ন ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিনগুলো এক্টিভেট করে নিন।

Leave a Comment