Homeঅনলাইন ইনকামওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করার উপায় ২০২১

ওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করার উপায় ২০২১

আপনি কি কখনো আউটসোর্সিং এর কথা শুনেছেন? ঘরে বসে যে অনলাইনে আয় করা যায় সেটি শুনে ইন্টারনেটে বিভিন্ন উপায় খুজাখুজি করা শুরু করে দিয়েছেন? যদি তাই হয়, তাহলে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। কারণ আজকের এই আর্টিকালে আমি আলোচনা করবো কিভাবে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করা যায় এ সম্পর্কে বিস্তারিত। আপনার যদি অনলাইন ইনকাম স্বমন্ধে কোনো ধারনা না থাকে তাহলেও আপনি আজকের আর্টিকালটি পড়ে উপকৃত হবেন।

তো চলুন শুরু করার আগে জেনে নিই ওয়েবসাইট কি-

ওয়েবসাইট কি?

ইন্টারনেটে যা কিছু রয়েছে তা সবকিছুই ওয়েবসাইট। এর মধ্যে রয়েছেঃ ব্লগ ওয়েবসাইট, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম, অনলাইন নিউজ পোর্টাল, ই-কমার্স ওয়েবসাইট, এজেন্সি ওয়েবসাইট সহ আরো অনেক কিছু। এই সবগুলোই এক-একটি ওয়েবসাইট।

আমরা যে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহার করি সেটিও একটি ওয়েবসাইট। কিন্তু সেই ওয়েবসাইটের আবার মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনও রয়েছে। আমরা মোবাইলে যেটি ব্যবহার করি সেটি হলো ফেসবুক অ্যাপ আর কোনো ব্রাউজার দিয়ে যদি ওপেন করি সেটি হলো ফেসবুক ওয়েবসাইট

তাছাড়া গুগলে সার্চ করলে আপনি অনেক অনেক ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন। সারা বিশ্বে মানুষ বেশি বেশি করে ওয়েবসাইট তৈরি করছে তার একমাত্র কারন এই ওয়েবসাইট দিয়ে টাকা আয় করা যায়। হ্যা, ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনেক মানুষ অনেক ধরনের বিজনেস করে লাভবান হচ্ছে। কিভাবে তারা এর মাধ্যমে লাভবান কিংবা বিত্তবান হচ্ছে এটা আমরা জানবো, কিন্তু তার আগে চলুন জেনে নেই কিভাবে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়-

কিভাবে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়?

বর্তমান ২০২১ সালে ওয়েবসাইট তৈরি করতে কোনো কোডিং নলেজের প্রয়োজন হয় না। ওয়ার্ডপ্রেস কিংবা ব্লগার দিয়ে খুব সহজেই ৫-১০ মিনিটেই একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন। যদি প্রোফেশনাল একটি ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে আপনাকে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করতে হবে।

এবং সেজন্য একটি কম্পানি থেকে আপনাকে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনে নিতে হবে। এবং বছরে বছরে এর ভাড়া দিতে হবে।

ডোমেইন হোস্টিং কেনা হয়ে গেলে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করতে হবে। ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট খুব সহজেই ম্যানেজ করতে পারবেন এবং এর জন্য কোনো কোডিং জানার প্রয়োজন হবে না।

দেখে নিন-

এবার চলুন জেনে নিই- ওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করার উপায়সমূহ-

1.গুগল এডসেন্স(Google AdSense) থেকে আয়

গুগল এডসেন্স হলো গুগলের এইটি বিজ্ঞাপন প্রচার প্রোগ্রাম। ২০০৩ সালের জুন মাস থেকেই গুগল এডসেন্স তাদের প্রোগ্রামটি প্রথম চালু করে। এখানে কাজ করতে হলে আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকতে হবে। এবং সেই ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য গুগল থেকে অনুমতি নিতে হবে।

আপনার ওয়েবসাটের মধ্যে গুগল এডসেন্সের অনুমতি পেয়ে গেলে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখাতে পারবেন। এবং আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটররা যখন বিজ্ঞাপন দেখবে এবং ক্লিক করবে তখন আপনার এডসেন্সে একাউন্টে ডলার জমা হবে।

সেখানে ১০০ ডলার জমা হয়ে গেলে যেকোনো ব্যাংকের মাধ্যমে ডলারগুলো টাকায় রূপান্তর করে হাতে নিয়ে আসতে পারবেন। গুগল যদি বিজ্ঞাপন দাতার কাছ থেকে ১০০ ডলার নেয় তাহলে নিজে ৩৮ ডলার রেখে বিজ্ঞাপন প্রচারককে ৬৮ ডলার দিয়ে দেয়।

আপনি যদি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করতে চান তাহলে খুব সহজেই গুগল এডসেন্সের পাবলিশার হিসেবে কাজ করতে পারেন। তাহলে শুধুমাত্র এডসেন্স থেকে প্রতিমাসে ভালো টাকা আয় করতে পারবেন।

আপনি জানলে অবাক হবেন, Pete Cashmore তার ওয়েবসাইট mashable.com-এ শুধু মাত্র গুগল অ্যাডসেন্স থেকে প্রতি মাসে আয় করেন ৪ কোটি ৫৫ লক্ষ টাকা।

অবশ্যই পড়ুনঃ

2.শাখা বিপণন (Affiliate Marketing) করে আয়

অনলাইনে শাখা বিপণন বা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং খুব জনপ্রিয় একটি কাজ। এর হার দিন দিন বেড়েই চলেছে। কমিশন পাওয়ার আশায় কোনো একটি প্রতিষ্ঠানের পণ্য কিংবা সার্ভিস প্রচার করাকে শাখা বিপনন বলা হয়ে থাকে।

আপনার যদি একটি ব্লগ ওয়েবসাইট থাকে এবং সেখানে প্রতিনিয়তই অনেক ভিজিটর আসে তাহলে যেকোনো প্রতিষ্ঠানের হয়ে আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন। এবং এই শাখা বিপণন করার মাধ্যমে মাসিক লক্ষ টাকা অধিক আয় করতে সক্ষম হতে পারেন।

এটি করার জন্য প্রথমে আপনাকে যেকোনো Affiliate ওয়েবসাইটটে জয়েন করে নিতে হবে। এবং সেখান থেকে পণ্যগুলোর Affiliate Link পাবেন। এই লিংকগুলোই আপনাকে প্রচার করতে হবে। কেউ যদি আপনার এফিলিয়েট লিংকে ক্লিক করে কোনো কিছু ক্রয় করে তাহলে সেখান থেকে আপনি কমিশন পেয়ে যাবেন।

তো আপনি প্রথমে আপনার ওয়েবসাইটে একটি নির্দিষ্ট পণ্যের পর্যালোচনা লিখবেন এবং সেখানে পণ্যটির বিক্রির লিংক যুক্ত করে দিবেন। কেউ যদি আপনার উল্লেখিত লিংকে ক্লিক করে পণ্যটি ক্রয় করে তাহলে আপনি সেখান থেকে কমিশন পেয়ে যাবেন।

তো আপনি চাইলে আজকেই একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে শাখা বিপনন করার মাধ্যমে আয় করা শুরু করে দিতে পারেন।

3.অর্থ প্রদত্ত পর্যালোচনা লেখা বা Sponsor Review:

আপনার ওয়েবসাইটটি যদি খুব জনপ্রিয় একটি ওয়েবসাইট হয় তাহলে আপনি এখানে অর্থের বিনিময়ে পর্যালোচনা লিখতে পারেন। অর্থাৎ, যদি প্রতিদিন ৪-৫ শত ভিজিটর আপনার সাইটে আসে এবং আপনার লেখা পর্যালোচনাগুলো সময় নিয়ে পড়ে, তাহলে আপনি বিভিন্ন কম্পানির সাথে সরাসরি চুক্তি করে টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন পণ্যের পর্যালোচনা লিখতে পারেন।

তারা, তাদের পণ্যের পর্যালোচনা লিখে দেওয়ার জন্য আপনাকে টাকা দিবে। কেননা এতে করে তাদের কম্পানির বেশি বেশি প্রচার হবে। ফলে তাদের পণ্য বা সার্ভিস বেশি বেশি বিক্রি করতে পারবে।

এভাবে ওয়েবসাইটে পর্যালোচনা লিখার মাধ্যমেও আয় করা যায়।

4.ব্যাক-লিংক(Backlink) বিক্রয়ঃ

যারা SEO সম্পর্কে জানেন তারা অবশ্যই Backlink শব্দটি শুনেছেন। Backlink বলতে মূলত অন্য ওয়েবসাইটের মধ্যে থাকা আপনার ওয়েবসাইটের লিংকগুলোকে বুজায় যা সার্চ ইঞ্জিনের রেংকিং-এর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন।

তো আপনার ওয়েবসাইটটি যদি রেংকিং-এ ভালো পজিশনে থাকে এবং ডোমেইন অথরিটি খুব ভালো হয়, তাহলে আপনি আপনার সাইটে অন্য সাইটের একটি লিংক দেওয়ার জন্য ১০ ডলার থেকে ১০০ ডলারও পেতে পারেন।

আসলে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ভালো পর্যায়ে যাওয়ার পর এর ৮০% আয় কেবলমাত্র এসইও সার্ভিসের মাধ্যমে করা সম্ভব। যেমনঃ ব্যাক-লিংক বিক্রি, গেস্ট পোস্টিং, ট্রাফিক সেল সহ ইত্যাদি।

আপনি যদি এসইও সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে জেনে নিন- SEO কি এবং কিভাবে ওয়েবসাইটের এসইও করবো ?

5.নিজের পরিষেবা বিক্রয়

আপনার যদি কোনো পরিষেবা থেকে থাকে যেমন গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডিজাইন বা ডেভেলোপমেন্ট, আর্টিকাল রাইটিং, ডিজিটাল মার্কেটিং, এসইও ইত্যাদি তাহলে আপনি আপনার ব্লগের ভিজিটরদের কাছে তা বিক্রি করে ভালো অর্থ আয় করতে পারবেন।

তাছাড়া আপনার কোনো ব্যাবসা থাকলে সেই ব্যাবসার পণ্য নিয়েও এই কাজটি করতে পারেন নিজের ওয়েবসাইট তৈরি করে।

এটি খুব সহজ একটি ব্যপার। আপনি যদি উপরে উল্লিখিত কোনো বিষয়ে দক্ষ হন তাহলে সেই বিষয়টি নিয়ে লেখালেখি করতে পারেন। আর আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর নিয়মিত আপনার আর্টিকালগুলো পরবে এবং এ থেকে আপনি তাদের বিশ্বাস অর্জন করে ফেলবেন।

তখন আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটরদের যদি যেকোনো সার্ভিসের প্রয়োজন হয় তাহলে সে আপনার সাথে যোগাযোগ করবে। এবং সার্ভিসটি সে আপনাকে দিয়েই করিয়ে নিতে চাইবে। কেননা আপনার লেখাগুলো পড়েই সে বিষয়গুলো জানতে পেরেছে।

আর এভাবেই ওয়েবসাইটে পরিষেবা বিক্রি করে আয় করা যায়। আপনি চাইলেও আজ থেকেই শুরু করতে পারেন।

6.নিজ ব্যাবসার বিজ্ঞাপন

বিশ্বের অনেক বড় বড় কম্পানিগুলো তাদের গ্রাহকদের সুবিধার জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে এবং সেখানে বিভিন্ন জিনিস নিয়ে ব্লগ লিখে থাকে।

কোনো ব্যাবসা-প্রতিষ্ঠানের ব্লগ লেখার প্রধান উদ্দেশ্য হলো গুগল সার্চ রেজাল্টের প্রথমে জায়গা দখল এবং গ্রাহকদের পর্যাপ্ত সেবা প্রধানের মাধ্যমে সেখান থেকে অর্থ আয় করা।

তো আপনারও যদি কোনো বিজনেস থাকে তাহলে সেই বিজনেস সম্পর্কিত বিভিন্ন জিনিস নিয়ে পর্যালোচনা লেখালেখি করে গ্রাহকদের সেবা প্রধান করতে পারেন এবং আপনার বিজনেসটি আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বেশি বেশি প্রচার করতে পারেন ।

পর্যালোচনাগুলোতে আপনার বিজনেস সম্পর্কে ধারণামূলক বিজ্ঞাপন রাখতে পারেন এবং সে সকল পর্যালোচনাগুলোর এসইও করে সার্চ ইঞ্জিনে জায়গা দখল করতে পারেন। এর ফলে আপনার বিজনেস এর গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে এবং এতে আপনি বেশি লাভবান হবেন।

7.বিজ্ঞাপনের জায়গা বিক্রয়

আপনার ওয়েবসাইটে যদি পর্যাপ্ত পাঠক আসে এবং পেইজ ভিউ করে তাহলে আপনি বিজ্ঞাপনের জায়গা বিক্রির বিষয় নিয়ে বিভিন্ন কম্পানির সাথে কিংবা যেকোনো বিজ্ঞাপনদাতার সাথে কথা বলতে পারেন। অর্থাৎ, চুক্তি করতে পারেন।

আপনার ওয়েবসাইট যদি অনেক জনপ্রিয় হয় তাহলে বিভিন্ন কম্পানির প্রোমোশনাল বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য আপনার ওয়েবসাইটের একটি জায়গা বহাল রাখতে পারেন। আপনার ওয়েবসাইতে তখন শুধুমাত্র বিজ্ঞাপণ প্রকাশের জন্য একটু অতিরিক্ত জায়গা রাখবেন এবং প্রতিটি জায়গায়ই বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য বিজ্ঞাপনদাতার কাছ থেকে অর্থ রাখবেন। খুব সিম্পল।

আর এভাবেই ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য অন্য কম্পানি থেকে টাকা নিয়ে আয় করতে পারেন।

8.অতিথি পোস্টের মাধ্যমে ব্লগ থেকে আয়

আপনি হয়তো জানেন, অনলাইনে কাউকে দিয়ে যদি কোনো পর্যালোচনা বা আর্টিকাল লেখাতে হয় তাহলে বেশ কিছু টাকা খরচ করতে হয়। কেমন হবে যদি কেউ আপনার সাইটে আপনাকে ফ্রি ফ্রি একটি আর্টিকাল লিখে দেয় এবং এর সাথে আপনাকে ২৫ ডলার দিয়ে দেয়?

আপনি যেই আর্টিকাল টাকা দিয়ে লেখাতেন সেই আর্টিকাল ফ্রিতে পাচ্ছেন আবার সাথে ২৫ ডলারও পাচ্ছেন।

হ্যা। অবাক লাগারই বিষয়। কিন্তু আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটে মন দিয়ে কাজ করেন এবং সাইটের এসইও করে গুগল সার্চ ইঞ্জিনে অনেক জায়গা দখল করতে পারেন।

অর্থাৎ, আপনার ওয়েবসাইটকে পাওয়ারফুল করতে পারেন, ডোমেইন অথরিটি বাড়াতে পারেন তাহলে আপনার সাইটে লোকজন টাকা দিয়ে আর্টিকাল লিখবে। যাকে আপনা guest blogging বা guest posting বলে থাকি।

9. ইমেইল লিষ্ট তৈরি করে আয়

আপনার ওয়েবসাইটের যখন প্রতিনিয়ত অনেক ভিজিটর আসতে থাকবে তখন আপনি চাইলে একটি কাজ করতে পারেন। আপনি আপনার ওয়েবসাইটে ই-মেইল সাবমিট করার জন্য একটি অপশন চালুন করতে পারেন। এবং সেখানে আপনার ভিজিটররা ইমেইল সাবমিট করলে সেই ইমেইলের একটি লিস্ট তৈরি করতে পারেন। এবং সেগুলো বিভিন্ন অনলাইন মার্কেটপ্লেসে বিক্রি করে দিতে পারেন।

এভাবেই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইমেইল লিষ্ট তৈরি করে খুব সহজেই ঘরে বসে আয় করা যায়।

10. ওয়েবসাইট বিক্রি করে টাকা আয়

আপনি যদি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন এবং সেখানে লেখালেখি করেন তাহলে পরবর্তিতে চাইলে আপনার সাইটটি বিক্রি ও করে দিতে পারবেন। তাই এখানে কোনো ভয় নেই।

মনে করুন, আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে উপরোক্ত কোনো উপায়েই আয় করতে পারলেন না। তখন কি আপনি হেরে গেলেন? কখনই নয়।

যদি আপনার সাইটের কোনো খারাপ রেকর্ড তৈরি না হয় তাহলে আপনার সাইট অনায়েসেই বিক্রি করে দিতে পারবেন। আর কষ্ট করে একটি সাইটকে রেংক করালে পরবর্তীতে সেই সাইট খুব ভালো দামেই বিক্রি করা যায়।

FAQs

ওয়েবসাইট তৈরি করে কত টাকা আয় করা যায়?

ওয়েবসাইট তৈরি করে প্রতি মাসে অনেক মানুষ লাখ-লাখ টাকা আয় করে। তবে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে আপনি সেখান থেক কত টাকা আয় করতে পারবেন তা সম্পূর্নই নির্ভর করে আপনার উপর। আপনি যদি একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করেন এবং সেখানে দৈনিক ৫-৬ ঘন্টা করে সময় দেন তাহলে ৪-৫ মাসের মধ্যেই আপনার প্রথম ইনকাম শুরু হতে পারে।
অনেকে ৫-৬ ঘন্টা সময় দিয়ে ৪-৫ মাস পর ২০০+ ডলার আয় করতে পারে । আবার অনেকে ২-৩ ঘন্টা সময় দিয়েই মাসে ৫০০ ডলার আয় করতে পারে। তো এখানে মেধা এবং দক্ষতাই প্রধান বিষয়।

কোন ধরনের ওয়েবসাইট থেকে বেশি আয় করা যায়?

আসলে সব ধরনের ওয়েবসাইট থেকেই আয় করা যায়। কিন্তু বেশি পরিমানে আয় করতে হলে আপনার বেশি সময় দিতে হবে, বেশি পুঁজি দরকার হবে, এবং ইউনিক মেধা লাগবে।
আপনি যদি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করেন তাহলে সেখানে পণ্য ও বিক্রি করতে পারবেন আবার বিভিন্ন পণ্যে বিজ্ঞাপনও দিতে পারবেন। তাছাড়া গুগল এডসেন্স এর হয়েও কাজ করতে পারবেন।

ব্লগ ওয়েবসাইট বলতে কি বুঝায়?

অনেক ধরনের ওয়েবসাইট রয়েছে। কিন্তু যেই ওয়েবসাইটে বিভিন্ন জিনিস নিয়ে প্রতিদিন ইনফরমেটিভ আর্টিকাল প্রকাশিত হয় তাকে ব্লগ ওয়েবসাইট বলে। গুগল কোনো কিছু জানার জন্য সার্চ করলে মূলত ব্লগ ওয়েবসাইটের লিংকগুলো-ই প্রথমে চলে আসে। কেননা ব্লগ ওয়েবসাইটের মধ্যে অনেক ইনফরমেশন থাকে।
বর্তমান পৃথিবীতে প্রায় 600 মিলিয়ন ব্লগ ওয়েবসাইট রয়েছে।

বাংলা ভাষার ব্লগ ওয়েবসাইট থেকে কত আয় করতে পারবো?

আপনি যদি বাংলা সাইট নিয়ে কাজ করেন তাহলে সব ভিজিটর বাংলাদেশ থেকে আপনার সাইটে আসবে।
তাই বাংলা সাইট থেকে ইংরেজী সাইটের ইনকাম অবশ্যই বেশি হয়। কিন্তু ইংরেজী ওয়েবসাইটের মধ্যে প্রতিযোগীতাও অনেক বেশি। ইংরেজী সাইট নিয়ে কাজ করতে গেলে আপনার ভালো মার্কেটিং-এর জ্ঞান থাকতে হবে।
আবার অনেকক্ষেত্রে ওয়েবসাইটের-এর আয় দায় ওয়েবসাইটের টপিক বা নিশ এর উপর নির্ভর করে । কোনো কোনো টপিকের কি-ওয়ার্ড রয়েছে যার CPC অনেক কম আবার কোনোটার বেশি । তো যেই টপিকের CPC বেশি সেই টপিকের ব্লগ থেকে বেশি অর্থ আয় করা যাবে।

বাংলা ওয়েবসাইটে কি গুগল এডসেন্স থেকে আয় করা যায়?

হ্যা, অবশ্যই।
কয়েক বছর আগে গুগল এডসেন্স বাংলা ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখানোর অনুমতি দিত না। কিন্তু ২০২১ সালে আপনি চাইলে বাংলা ওয়েবসাইট দিয়েও গুগল এডসেন্সের সাথে কাজ করতে পারেন।

সর্বশেষ কথা

ওয়েবসাইট থেকে যে কত উপায়ে আয় করা যায় তা আপনি শুরু না করে বুঝতে পারবেন না। আপনি অনলাইনে বিভিন্ন কাজ করে অর্থ আয় করতে পারবেন কিন্তু ব্লগিং করার একটি সুবিধা হচ্ছে এখানে ১-২ বছর সময় দেওয়ার পর আর বেশি সময় দেওয়ার দরকার হয় না।

Join in our facebook group: https://www.facebook.com/groups/techbdtricks

আরো পড়ুনঃ

Tech BD Trickshttp://techbdtricks.com
তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পর্কিত বিভিন্ন খবর সবার আগে পেতে চাইলে Tech BD Tricks এর সাথেই থাকুন। দেশের বেকারত্ব হ্রাস এবং টেকনোলজি বিষয়ক তথ্য মানুষের কাছে সঠিকভাবে পোছে দিতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।
RELATED ARTICLES

8 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recenty published

error: Content is protected !!