সার্চ ইঞ্জিন কাকে বলে – সার্চ ইঞ্জিন পরিচিতি ২০২৪

ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোনো তথ্য খোজার জন্য যে বিশেষ ধরণের অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয় তাকে সার্চ ইঞ্জিন বলে। সার্চ ইঞ্জিন হলো একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম যা ইন্টারনেটে থাকা তথ্য খুঁজে বের করে ব্যবহারকারীদের জন্য প্রদান করে। আজকে আমরা সার্চ ইঞ্জিন কাকে বলে এবং সার্চ ইঞ্জিন সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো।

সার্চ ইঞ্জিন শব্দটার মাঝের এই অর্থ লোকানো। “সার্চ ইঞ্জিন” অর্থাৎ সার্চ করার জন্য একটি সফটওয়্যারবিশেষ।

সার্চ ইঞ্জিনে সব ধরনের তথ্য সংরক্ষিত রয়েছে, যেকোনো মূহুর্তে যেকোনো কিছু সার্চ করার সাথেসাথেই তথ্যগুলো আমরা পেয়ে যাই।

বর্তমান সময়ে গুগল সার্চ ইঞ্জিন সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হলেও, প্রথম ওয়েব সার্চ ইঞ্জিন ছিল Archie, মন্ট্রিলের ম্যাকগিল ইউনিভার্সিটির ছাত্র অ্যালান এমটাজ 1990 সালে আর্কি সার্চ ইঞ্জিন তৈরি করেছিলেন।

বর্তমান সময়ে বহুল ব্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিনের নাম হচ্ছে গুগল।

গুগলে প্রতি মিনিটে ৫.৯ মিলিয়নবার সার্চ করা হয় এবং প্রতিবছরে এর সার্চ সংখ্যা দাঁড়ায় ৩.১ ট্রিলিয়ন।

গুগল ছাড়াও ইন্টারনেটে তথ্য খোজার জন্য আরো অনেক সার্চ ইঞ্জিন রয়েছে। এর মধ্যে Yahoo, Bing, Baidu, Yandex অন্যতম।

সার্চ ইঞ্জিনের ভূমিকা

বর্তমান যুগে সার্চ ইঞ্জিনের ভূমিকা অপরিসিম। এখন আমাদের সবকিছু অনলাইন নির্ভর হয়ে গেছে, যার কারনে আমাদের দৈনন্দিন কাজ করা অনেক সহজ হয়ে দাড়িয়েছে।

কি নেই এখন ইন্টারনেটে! যেকোনো কিছু গুগল সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করে তা জেনে নিতে পারছি।

উদাহরনস্বরূপ ধরা যাক, আপনি একটি নতুন মোবাইল কিনবেন। তাহলে আপনি প্রথমে কি করবেন? অবশ্যই গুগলে সার্চ করে দেখে নিবেন যে কোন মোবাইলটি আপনার কেনা উচিত হবে।

এতে আপনার সময়, শ্রম, টাকা সবকিছুই বেচে যাবে।এবং এটি সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিন থাকার কারনে।

এটাতো গেল মাত্র একটা উদাহরন, মোবাইলের দাম জানা থেকে শুরু করে পড়াশোনার কাজে, পথ ঘাট খুজে বের করার কাজে, অনলাইন শপিং সহ ইত্যাদি কাজে সার্চ ইঞ্জিনের রয়েছে হাজারো উদাহরন।

এক কথায়, বর্তমান যুগে যদি কোনো সার্চ ইঞ্জিন না থাকে তাহলে জীবনধারন করা সম্ভব নয়।

সার্চ ইঞ্জিন তৈরির ইতিহাস

১৯৮৯ সালে সর্বপ্রথম কম্পিউটার বিজ্ঞানী Alan Emtage সার্চ ইঞ্জিন আবিষ্কার করেন।

McGill University-তে পড়ার সময় তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিস্টেম এডমিনিস্টেটরের পদে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

কাজ করতে গিয়ে তিনি দেখেন ছাত্রদের জন্য সারাক্ষণ ইন্টারনেট ঘেঁটে ঘেঁটে সফটওয়্যার খোঁজা অনেক কষ্টকর হয়ে যাচ্ছে , সে সাথে কাজটি খুব বিরক্তিকর।

তিনি এমন কিছু তৈরি করার করা ভাবলেন ভাবলেন যেন চাইলেই খুব সহজে যে কোন তথ্য একনিমিষেই খুঁজে বের করা যায়।

সেই ভাবনা থেকে তিনি একটি Script set তৈরি করেন যেটি ভার্সিটির সিস্টেম ডেটাবেজ থেকে নিজে নিজেই অনায়াসে তথ্য খুঁজে দিতে পারে!

তারপর তার আছে আরো দুইজন বন্ধু এগিয়ে এলেন। একজন Mike Parker এবং অন্যজন Bill Heelan.

তাঁরা তিনজন মিলে ১৯৯১ সালে তৈরি করেন পৃথিবীর প্রথম অনলাইন সার্চ ইঞ্জিণ যার নাম ছিল Archie.

Archie ছিল সর্বপ্রথম আবিষ্কৃত সার্চ ইঞ্জিন যেটা ১৯৯১ সালে তিন বন্ধু (Alan Emtage, Mike Parker, এবং Bill Heelan) মিলে আবিষ্কার করেছিল।

সার্চ ইঞ্জিন কত প্রকার ও কি কি

ইন্টারনেটে অনেক ধরনের সার্চ ইঞ্জিন আছে। এগুলোকে প্রধাণত ৭ টি ভাবে বিভক্ত করা হয়েছে। নিচে এগুলো তালিকা আকারে প্রকাশ করা হলোঃ

  1. General Search Engines: সাধারন কোনো তথ্য খোজার জন্য যে সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয় তাকে সাধারন সার্চ ইঞ্জিন বলে।
  2. Vertical Search Engine: ভার্টিকাল সার্চ ইঞ্জিন একটি নির্দিষ্ট কন্টেন্ট এর উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। যেমনঃ ইউটিউবের সার্চ ইঞ্জিন (এখানে সার্চ করলে শুধুমাত্র ভিডিও কন্টেন্ট প্রদর্শিত হয়)
  3. Hybrid Search Engine: যে সকল সার্চ ইঞ্জিন একের অধিক এলগরিদম ব্যবহার করে রেজাল্ট এনে দেয় তাকে হাইব্রিড সার্চ ইঞ্জিন বলে। উদাহরনস্বরুপ একটি সাধারন সার্চ ইঞ্জিন যদি শুধু ভিডিও রেজাল্ট দেখায় , হাইব্রিড ওয়েবসাইট ভিডিও এবং ছবি উভয়ের উপর ভিত্তি করে উপযুক্ত রেজাল্ট প্রদর্শন করবে। গুগল সার্চ ইঞ্জিন একটি হাইব্রিড সার্চ ইঞ্জিন।
  4. Meta Search Engine: মেটা সার্চ ইঞ্জিন হলো একটি সার্চ ইঞ্জিন যা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফলগুলিকে একত্রিত করে একটি তালিকা আকারে ব্যবহারকারীর কাছে উপস্থাপন করে।
  5. Web Search Engines: ওয়েব সার্চ ইঞ্জিন হল একটি সাধারণ ধরনের সার্চ ইঞ্জিন যা ব্যবহারকারীদের কীওয়ার্ড দ্বারা ওয়েবসাইট অনুসন্ধান করার অনুমতি দেয়।
  6.  Image Search Engines: যে সকল সার্চ ইঞ্জিনে কীওয়ার্ড দ্বারা ছবি অনুসন্ধান করা হয় তাকে ইমেজ সার্চ ইঞ্জিন বলে।
  7. Video Search Engines: যে সকল সার্চ ইঞ্জিনে ভিডিও সার্চ করা হয় তাহলে ভিডিও সার্চ ইঞ্জিন বলে।

আশা করি সার্চ ইঞ্জিন কত প্রকার এবং কি কি সেগুলো খুব ভালো করে দেখে নিয়েছেন। এখন আসুন দেখি যে সার্চ ইঞ্জিন কিভাবে কাজ করে সে বিষয়টি।

সার্চ ইঞ্জিন কিভাবে কাজ করে?

সার্চ ইঞ্জিন শুধুমাত্র তথ্য খুজে দেওয়ার মাধ্যমে কাজ করে। উদাহরনস্বরূপ,

আপনি সার্চ ইঞ্জিন-কে একজন লাইব্রেরিয়ানের সাথে তুলনা করতে পারেন। ধরুন আপনি লাইব্রারি থেকে একটি বই নিতে চাচ্ছেন।

তাহলে সাধারনত আপনি জানবেন না যে আপনার কাঙ্খিত বইটি কোথায় রয়েছে।

কিন্তু সে লাইব্রেরির যিনি লাইব্রেরিয়ান রয়েছে তিনি ঠিক জানেন যে কোন বইটি কোথায় আছে। আপনি যদি তাকে জিজ্ঞাস করেন তাহলে সে আপনাকে ঐ বইটি দেখিয়ে দিবে।

সার্চ ইঞ্জিন ও ঠিক একজন লাইব্রেরিয়ানের মতো।

সারা পৃথিবীতে লক্ষ কোটি ওয়েবসাইট রয়েছে এবং সেসব ওয়েবসাইটের মধ্যে রয়েছে অগণিত তথ্যসমগ্র। একটি সার্চ ইঞ্জিন এসব তথ্য নিজের কাছে জমা রাখে না। বরং সার্চ ইঞ্জিন মনে রাখে যে কোন তথ্যটি কোথায় রয়েছে।

ফলে, কেউ যদি কোনো তথ্য জানার জন্য কোনো কিওয়ার্ড লিখে সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করে, সাথে সাথে সার্চ ইঞ্জিন কিওয়ার্ড রিলেটেড তথ্যগুলোর সোর্স সামনে নিয়ে আসে।

এভাবেই মূলত সার্চ ইঞ্জিন কাজ করে থাকে। এর সাথে অবশ্যই সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সংশ্লিষ্ট।

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিনের নাম কি?

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিনের নাম হলো Google. এটি সম্পূর্নে মার্কেটের ৯০% জায়গা দখল করে আছে। গুগলে প্রতি মিনিটে প্রায় 5.9 Million সার্চ করা হয় এবং বছরে 3.1 trillion সার্চ।

বাংলাদেশের নিজস্ব বাংলা সার্চ ইঞ্জিনের নাম কি

বাংলাদেশের নিজস্ব বাংলা সার্চ ইঞ্জিনের নাম হলো পিপীলিকা সার্চ ইঞ্জিন যেটি ১৩ এপ্রিল ২০১৩ সালে এটি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম উদ্বোধন করা হয়। সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে সর্বপ্রথম পিপীলিকা চালু করা হয়েছিল।

সর্বশেষ কথা

আমরা আজকে সার্চ ইঞ্জিন কাকে বলে, সার্চ ইঞ্জিন কি এবং এই রিলেটেড বিভিন্ন তথ্য জেনে নিলাম। সার্চ ইঞ্জিন নিচে আজকের লেখা প্রবন্ধটি আপনাদের উপকার করতে পেরেছে বলে আশা করি। এই স্বমন্ধে আপনার মতামত আমাদের কমেন্ট বক্সে লিখে জানাতে পারেন।

Leave a Comment