মোবাইল দিয়ে অনলাইন টাকা আয় কিভাবে করা যায়?

মোবাইল দিয়ে অনলাইন টাকা আয় কিভাবে করা যায়?

মোবাইল দিয়ে অনলাইন টাকা আয় কিভাবে করা যায়? বা অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট বা মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট নেওয়ার যায়? বর্তমানে এরকম শব্দ লিখে বেশি বেশি সার্স করা হচ্ছে বিভিন্য সার্স ইন্জিনে। তো আবার কিছু অসাধু মানুষ এটাকে কাজে লাগিয়ে অনেক ধরনের আর্টিকেল বের করছে। যা দেখে স্বাধারন মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছে। তাই আমি আজকে আপনাদের মাঝে এরকম কিছু বিষয় নিয়ে হাজির হলাম যার মাধ্যমে আপনারা রিয়েলটাইম অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন। তাই আর বেশি বকবক না করে চলুন শুরু করি আজকের আলোচনা এবং আপনাদেরকে জানাই কিভাবে আপনারাউ অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন আপনার হাতের মোবাইলটির মাধ্যমে।

 

মোবাইল দিয়ে অনলাইন টাকা আয় কিভাবে করা যায়? মোবাইল দিয়ে আপনি অনেক কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে তার মধ্য থেকে বেছে বেছে আজ আমি আপনাদের জন্য শেরা কিছু মাধ্যম শেয়ার করবো। যেগুলো হতে পারে আপনার জন্য লাইফটাইম ইনকাম সোর্স। তবে আপনারা কোনো এপ এ ক্লিক করে প্রতি ক্লিক এত টাকা এরকম কাজের ফাদে পরবেন না। কারন এগুলো নিতান্তই সময় অপচয় করা ছাডা অন্য কিছু না।

 

YouTube হতে মোবাইল দিয়ে টাকা আয়ঃ

 

হ্যাঁ। আপনি যেটা  জানেন সেটা করার মাধ্যমে ইউটিউবকে ব্যাবহার করে টাকা ইনকাম করতে পরবেন। আপনি ভ্রমন পছন্দ করেন? উত্তর যদি হ্যাঁ হয় তাহলে আপনি আপনার ভ্রমন করা সুন্দর সুন্দর স্থান গুলোর ভিডিও ধারন করতে পারেন এবং সেগুলো ইউটিউবে আপলোড করে আপনার চ্যানেলের মাধ্যমে ইনকাম করতে পারেন। আপনি গৃহিনি? তাহলে আপনি রান্না করা শেখান। আপনি ফটোগ্রাফার? তাহলে আপনার তোলা ছবি দিয়ে ভিডিও বানিয়ে আপলোড করে দিন ইউটিউবে।

 

এভাবে আপনি যেই কাজই করেন না কেনো সেই কাজকেই আকরে ধরে আপনি ইউটিউবকে ব্যাবহার করে ইনকাম করতে পারবেন। তবে মনে রাখবেন। আপনি একদিনে সফল হতে পারবেন না। আপনাকে নিয়মিত কাজ করে যেতে হবে। তারপর একদিন দেখবেন আপনার কোনো একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে গেছে। তারপর আপনাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না। দেখবেন আপনি সফল হয়ে গেছেন।

 

ব্লগে আর্টিকেল লিখে মোবাইল দিয়ে আয়ঃ

 

আপনার যদি লেখাললেখি করতে ভালোলাগে বা লেখালেখি করে ইনকাম করতে চান তাহলে আপনি এই ব্লগিং সেক্টরে আসতে পারেন। আপনাকে এর জন্য প্রথমেই একটি ব্লগ বানাতে হবে তারপর সেটাতে নিয়মিত ভাবে পোষ্ট বা আর্টিকেল পাবলিশ করে যেতে হবে। তারপর সেই পোষ্টগুলোকে এইও বা সার্স ইন্জিন অপটিমাইজেসন করতে হবে। তারপর যখন আপনি ভালো ভালো এবং ইউনিক কন্টেন্ট পাবলিশ করতে থাকবেন তখন দেখবেন আসতে আসতে আপনার ব্লগেত ভিসিটর আসা শুরু করবে এবং তখন আপনি গুগোর এডসেন্স এ মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। আর এটা হতে পারে আপনার লাইফটাইম ইনকাম সোর্স।

অবস্যই পরুনঃ

 

Android Apps দিয়ে টাকা আয়ঃ

 

আপনি হয়তো ভাবছেন আমি আর্নিং এপ এর কথা বলবো। কিন্তু না। আপনি আর্নিং এপ এর মাধ্যমে হয়তোবা 2-4 দিনে 200-300 টাকা ইনকাম করতে পারবেন। কিন্তু সেটা আপনার সাথে বেশি দিন থাকবে না। আর তাছাডাও এই কাজে আপনাকে অনেক সময়  ব্যায় করতে হবে। তবে আমি কি বলবো? আমি বলবো এপ তৈরি করার কথা। আপনি বিভিন্য টিউটোরিয়াল দেখে দেখে একটু কষ্ট করলেই এপস বানাতে পারবেন। আর সেটাতে আপনার এডমোবের এডস বসিয়ে ইনকাম করতে পারবেন। আপনি যদি গুগোল বা ইউটিউবে সার্স করেন তাহলে আপনি অনেক টিউটোরিয়াল পাবেন।

 

যেগুলো দেখে আপনি খুব সহজেই ছোটখাটো এপস বানাতে পারবেন এবং সেগুলোকে আপনাকে বিভিন্য যায়গায় শেয়ার করে ইউজার বাডিয়ে খুব ভালো পরিমানে লাইফটাইম ইনকাম করতে পারবেন। আপনি এর জন্য গুগোল প্লে কনসোল একাউন্ট খুলে নিয়ে গুগোল প্লে স্টোরে এপস গুলো পাবলিশ করতে পারেন। সেজন্য আপনাকে 25 ডলার পেমেন্ট করে একাউন্ট খুলতে হবে এবং আপনার একটি মাস্টারকার্ড থাকতে হবে।

 

কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করবেন?

 

আপনি চেষ্টা করলে নিয়মিত কিছু সময় ব্যয় করে আপনার হাতে থাকা মোবাইল দিয়ে অনলাইন হতে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে একটি বিষয় জেনে রাখুন সে ক্ষেত্রে এক দিনে অথবা এক সপ্তাহ আপনার আয় শুরু হয়ে যাবে না। কাজ শুরু করে কমপক্ষে ৩-৬ মাস কোন ধরনের লাভের আশা না করে নিয়মিত কাজ করে যেতে হবে। তারপর ইনকাম শুরু হয়েগেলে নিয়মিত কাজ না করেও মাঝে মধ্যে কাজ করেও অনলাইন হতে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে আয় করার জন্য ইউটিউব হচ্ছে সবচাইতে সহজ ও জনপ্রিয় প্লাটফর্ম। তাছাড়া মোবাইল দিয়ে গুগল ব্লগার হতে আপনার একটি ফ্রি ব্লগ তৈরি করে ব্লগে আর্টিকেল লিখে গুগল এডসেন্স হতে মাসে মাসে অনলাইন হতে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন।

অনলাইন আয়ের পরামর্শঃ

 

বাস্তবক্ষেত্রে অনলাইন আয়ের বিষয়টি অনেক লম্বা এবং দীর্ঘ একটা প্রসেস। আপনি চাইলে আজকে কাজ শুরু করে আগামী কাল হতে আয় শুরু করতে পারবেন না কিংবা আজ কাজ করে আগামীকাল থেকে পেমেন্ট পাওয়া শুরু হবে না। আর মোবাইল এ্যাপস দিয়ে হয়তবা আপনি এক দুই দিন ২০০/৪০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন কিন্তু দীর্ঘদিন আয় করে যেতে পারবেন না।

 

অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং, ব্লগিং কিংবা ইউটিউব যেটিই শুরু করুন না কেন কাজ করার জন্য আপনার অবশ্যই অভীজ্ঞতা থাকতে হবে। অভীজ্ঞতা না থাকলে আপনি যেকোন প্রতিষ্ঠান বা অনলাইন হতে ৫/৬ মাস ভালোভাবে স্টাডি করে কোন বিষয়ে অভীজ্ঞতা অর্জন করে নিবেন। তারপর ধৈর্য্যধারণ করে আরো ৫/৬ মাস আয়ের কথা চিন্তা না করে আন্তরিকতার সহিত কাজ চালিয়ে যেতে থাকবেন। আমি নিশ্চিতভাবে বলতে পারি কেউ ৫/৬ মাস আন্তরিকতার সাথে নিয়মিত কাজ করলে ছয় মাস পর প্রতি মাসে ২০০-৩০০ ডলার অনলাইন হতে আয় করতে পারবে।

 

তো আজকের এই আলোচনা এখানেই শেষ করবো। আপনি আরো জ্ঞান অর‌্যন করতে এই আর্টিকেলগুলো পরতে থাকুন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share via
Copy link